• রবিবার, ২৯ জানুয়ারি, ২০২৩
Bengal Links

তিন বিধায়কের পর এবার ঝাড়খণ্ড পুলিশের হাতে ধৃত এক আইনজীবী

বেঙ্গল লিংকস | সোনালী ঘোষ

প্রকাশিত: আগস্ট ৫, ২০২২, ০৬:০৭ পিএম


তিন বিধায়কের পর এবার ঝাড়খণ্ড পুলিশের হাতে ধৃত এক আইনজীবী


শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিতে তল্লাশি চালিয়ে একের পর জায়গা থেকে উদ্ধার হচ্ছে কোটি কোটি টাকা। এরমধ্যেই আবার লক্ষ লক্ষ টাকা নিয়ে কংগ্রেস তিন বিধায়কের পর কলকাতার শপিং মলে ৫০ লক্ষ টাকা সহ ঝাড়খণ্ড পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার রাঁচির বাসিন্দা রাজীব কুমার। পেশায় তিনি একজন আইনজীবী। পুলিশ সূত্রে, জনস্বার্থ মামলা প্রত্যাহার করার জন্য ১০ কোটি টাকা চেয়েছিলেন ওই আইনজীবী। শহরের এক শপিং মলে সেই টাকা নিতেই আসেন তিনি। তখনই অর্থসহ পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয় এই আইনজীবী। আইনজীবী  রাজীব কুমারকে জিজ্ঞাসাবাদ করার পর রাঁচিতে তার তিনটি ঠিকানায় হানা দেয় লালবাজারের গোয়েন্দা বিভাগ। তল্লাশিতে একটি কালো ডায়েরি উদ্ধার হয় ওই আইনজীবীর, একাধিক নথি এবং ডিজিটাল লেনদেনের তথ্য উঠে আসে গোয়েন্দা বিভাগের হাতে। ওই আইনজীবীর বিপুল সম্পত্তির হদিশও মিলে।  ১৬টি ফ্ল্যাট, একটি ৩ তলা বাড়ি, ৭ একর জমি, নয়ডায় ফ্ল্যাট ও অফিসের সন্ধান মেলে।
এই আইনজীবী ঝাড়খণ্ড সরকারের বিরুদ্ধে মনরেগা সংক্রান্ত মামলা লড়েছেন। এই মামলাতেই ইডি প্রাক্তন খনি সচিব পুজা সিংহলকে গ্রেফতার করেছিল। মুখ্যমন্ত্রীর পদ ব্যবহার করে হেমন্তের বিরুদ্ধে শিব শংকর শর্মা নামক এক ব্যক্তি মামলা দায়ে অভিযোগ করে। সেই মামলায় শিব শংকরের প্রতিনিধিত্ব করেন ধৃত রাজীব কুমার। কলকাতার এক ব্যবসায়ীকে ব্ল্যাকমেল করার অভিযোগে সেই আইনজীবীকে গ্রেফতার করা হয়। কখনো সরকারের বিরুদ্ধে  জনস্বার্থ মামলা তো কখনো মামলা করেছেন ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনের বিরুদ্ধেও। ওই আইনজীবীর বিরুদ্ধে তদন্ত করতে গিয়ে উঠে আসে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। এদিকে রাজীব কুমারের ছেলে অভিৎ কুমারের দাবি , তার বাবাকে ফাঁসানো হচ্ছে।  ঝাড়খণ্ড পুলিশ রাজীবের সন্ধান শুরু করলে কলকাতায় পালিয়ে আসে বলে অভিযোগ। ঝাড়খণ্ড পুলিশ সূত্রের ভিত্তিতে হেয়ার স্ট্রিট থানার পুলিশ ও লালবাজারের গোয়েন্দা বিভাগের গুন্ডা দমন শাখার আধিকারিকদের সন্ধানে ওই ব্যক্তিকে রবিবার রাতে গ্রেপ্তার করেন।