• রবিবার, ২৯ জানুয়ারি, ২০২৩
Bengal Links

মিউচুয়াল ফান্ড কী? জানুন খুঁটিনাটি

বেঙ্গল লিংকস | সায়নী মিত্র

প্রকাশিত: আগস্ট ২, ২০২২, ১২:১৯ পিএম


মিউচুয়াল ফান্ড কী? জানুন খুঁটিনাটি

মিউচুয়াল ফান্ড হল এমন একটি ফান্ড যা সম্পদ ব্যবস্থাপনা কোম্পানির (AMCs) মাধ্যমে পরিচালিত হয়, একাধিক বিনিয়োগকারীর কাছ থেকে এই কোম্পানিগুলি অর্থ সংগ্রহ করে স্টক, বন্ড এবং স্বল্পমেয়াদী লোনের মতো সিকিউরিটিজে সেই অর্থ বিনিয়োগ করে। সম্মিলিত হোল্ডিং পোর্টফোলি হিসেবেও পরিচিত মিউচুয়াল ফান্ড। এই মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট কেনে বিনিয়োগকারীরা। প্রতিটি ইউনিট ফান্ডে বিনিয়োগকারীর শেয়ারের অংশ এবং তার থেকে হওয়া আয়ের প্রতিনিধিত্ব করে মিউচুয়াল ফান্ড।

বিনিয়োগকারীদের মধ্যে একটি জনপ্রিয় বিনিয়োগের বিকল্প হল মিউচুয়াল ফান্ড। জনপ্রিয় হওয়ার বিভিন্ন কারণ রয়েছে।

ফান্ড প্রফেশনালভাবে পরিচালিত করা

বিনিয়োগকারীদের জন্য রিসার্চ করেন ফান্ড ম্যানেজাররা। এছাড়া তারা সিকিউরিটিজ নির্বাচন করে এবং সেগুলির কর্মক্ষমতা মনিটর করে। 

ফান্ড বৈচিত্র্যকরণ

 সাধারণত একাধিক কোম্পানি এবং শিল্পে বিনিয়োগ করে মিউচুয়াল ফান্ড। এর ফলে একটি কোম্পানির ব্যর্থতার কারণে হওয়া ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

লিকুইডিটি

বিনিয়োগকারীরা  যেকোন সময় খুব সহজেই তাদের ইউনিট রিডিম করতে পারে। বিনিয়োগকারীদের কাছে মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করার এবং সম্পদ বৃদ্ধি করার জন্য অনেক বিকল্প রয়েছে।  উদাহরণস্বরূপ, বন্ড ফান্ড (নির্দিষ্ট আয়ের তহবিল), ইক্যুইটি ফান্ড, ব্যালেন্স ফান্ড।

  • ইক্যুইটি শেয়ার লিকুইডিটি প্রদান করে, এগুলোর দাম বাড়ালে বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব।  এটি সহজেই পুঁজিবাজারে বিক্রি করা যায়।
  • বেশি লাভের ক্ষেত্রে বেশি হারে মুনাফা পাওয়া যায়।
  • কোম্পানির ব্যবস্থাপনা নিয়ন্ত্রণ করার সম্মিলিত অধিকার দেওয়া হয় ইক্যুইটি শেয়ারহোল্ডারদের।
  • ইক্যুইটি শেয়ারহোল্ডাররা সুবিধা পায় দুটি উপায়ে, বার্ষিক লভ্যাংশ এবং শেয়ারহোল্ডারের বিনিয়োগের মূল্য বৃদ্ধির ফলে লাভ।
  • সর্বোচ্চ ঝুঁকি বহন করে ইক্যুইটি শেয়ার। মিউচুয়াল ফান্ড তুলনামূলকভাবে কম ঝুঁকিপূর্ণ।

স্টক এবং এমএফ: একটি কোম্পানির যখন ফান্ডের প্রয়োজন হয়, তখন এটি আউটফ্লো হিসেবে অর্থ নেয় বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে। এর বিনিময়ে বিনিয়োগকারীদের দেওয়া হয় একটি স্থির এবং নিয়মিত সুদ প্রদানের প্রতিশ্রুতি।  

 ইনকাম ফান্ড: এতে সুদের উপর নির্ভর করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় এবং প্রধানত বর্ধিত পরিপক্কতার সঙ্গে লোন সিকিউরিটিজে বিনিয়োগ করা হয়। ইনকাম ফান্ডের গড় মেয়াদ হয় প্রায় ৫-৬ বছর।

স্বল্প মেয়াদী এবং অতি স্বল্প মেয়াদী ডেট ফান্ড: এগুলি ১-৩ বছরের স্বল্প মেয়াদী বিনিয়োগ। রক্ষণশীল বিনিয়োগকারীরা স্বল্পমেয়াদী ফান্ডে বিনিয়োগ করা পছন্দ করে, কারণ এই ফান্ডগুলি সুদের হারের ওঠানামার উপর খুব বেশি প্রভাবিত হয় না।

লিকুইড ফান্ড: লিকুইড ফান্ড ৯১ দিনের বেশি মেয়াদী ডেট উপকরণগুলিতে বিনিয়োগ করে না। এটি তাদের অনেক সময় ঝুঁকিমুক্ত রাখে।  লিকুইড ফান্ড নেতিবাচক রিটার্ন খুব কম দেয়।

ক্রেডিট অপারচুনিটিজ ফান্ড (FMP): এগুলি তুলনামূলকভাবে নতুন ডেট ফান্ড। অন্যান্য ডেট ফান্ডের তুলনায় ক্রেডিট অপারচুনিটিজ ফান্ড ডেট উপকরণের মেয়াদপূর্তির সময় অনুযায়ী বিনিয়োগ করে না। এই ফান্ডগুলি ক্রেডিট ঝুঁকি অনুযায়ী বা উচ্চ সুদের হার সহ কম-রেটেড বন্ডে বিনিয়োগ করে উচ্চস্তরে আয় করার চেষ্টা করে।  ক্রেডিট অপারচুনিটিজ ফান্ড সাধারণত ঝুঁকিপূর্ণ ডেট ফান্ড।

ফিক্সড ম্যাচুরিটি প্ল্যান: এটি ক্লোজড-এন্ডেড ডেট ফান্ড। নির্দিষ্ট আয়ের সিকিউরিটিজেও এই ফান্ডগুলি বিনিয়োগ করে।  সমস্ত FMP-এর একটি নির্দিষ্ট মেয়াদ থাকে, যেই সময়ে বিনিয়োগকারীদের টাকা লক-ইন থাকে। এটি উচ্চ রিটার্নের নিশ্চয়তা দেয় না।

 ব্যালেন্সড বা হাইব্রিড মিউচুয়াল ফান্ড: এটি হল ওয়ান-স্টপ বিনিয়োগের বিকল্প, এখানে ইক্যুইটি এবং ডেট উভয়েই বিনিয়োগ করার সুযোগ পাওয়া যায়।  

এই সমস্ত মিউচুয়াল ফান্ডগুলির পাশাপাশি আরও অনেক ধরনের ফান্ডে বিনিয়োগ করা যেতে পারে, যেমন সেক্টর-ফান্ড, স্বাস্থ্যসেবা, ফার্মা, ব্যাঙ্কিং, আইটি -এমন শিল্পেও বিনিয়োগ করার সুযোগ রয়েছে।

ফ্যাক্ট ফাইল থেকে আরও খবর