• রবিবার, ২৯ জানুয়ারি, ২০২৩
Bengal Links

বিনিয়োগ বিকল্প সম্পর্কিত নিবন্ধ

বেঙ্গল লিংকস | সোনালী ঘোষ

প্রকাশিত: আগস্ট ১০, ২০২২, ০১:০২ পিএম


বিনিয়োগ বিকল্প সম্পর্কিত নিবন্ধ

আপনার লক্ষ্য অর্জনের জন্য বিনিয়োগ অপরিহার্য। বিনিয়োগ আপনার ভবিষ্যতকে সুন্দর করার একমাত্র উপায়। আমারা সবসময়ই ভবিষ্যতের জন্য সঞ্চয় করার কথা ভেবে থাকি। কিন্তু বিনিয়োগ করা বিষয়টির দিকে নজর দিই না আমরা। সঞ্চয় এবং বিনিয়োগ উভয়ই একটি শক্তিশালী আর্থিক ভিত্তি তৈরির জন্য গুরুত্বপূর্ণ ধারণা, কিন্তু দুটো জিনিস সম্পূর্ণ ভিন্ন। তবে বিনিয়োগ করার জন্য আবশ্যই সঞ্চয় করা প্রয়োজন । 
বিনিয়োগ কী?
বিনিয়োগ হল পরিকল্পনায় রাখা তহবিল যা একটি নির্দিষ্ট সময়ের শেষে আপনাকে আরও ভাল লাভ এনে দেয়। একটি বিনিয়োগ অর্থের একটি পরিচালন যেখান থেকে কেউ বরাদ্দকৃত মূল পরিমাণ ছাড়াও কোনো ধরনের রিটার্ন আশা করে। বিনিয়োগের উপর রিটার্ন বা ROI হল একটি সাধারণ কর্মক্ষমতা পরিমাপ যা আর্থিক বিনিয়োগের দক্ষতার মূল্যায়ন করতে ব্যবহৃত হয়। 
 বিষয়টা আরও সহজ ভাবে দেখলে  আপনার এবং আপনার প্রিয়জনের ভবিষ্যৎ সুন্দর করার জন্য টাকা-পয়সা বিনিয়োগের অর্থই হল নিজের সময় এবং সম্পদ প্রবৃত্ত করা। ভারতে আর্থিক ক্ষেত্রে বিনিয়োগের অর্থ হল স্টক সঞ্চয় করা, যা সময়ের সাথে টাকা অথবা মূলধন লাভের পরিমাণ বৃদ্ধি করতে পারে।
একটি সাধারণ নিয়ম হল সঞ্চয় হওয়া উচিত স্বল্পমেয়াদী এবং বিনিয়োগ দীর্ঘমেয়াদী হওয়া উচিত।
কীভাবে বিনিয়োগ করা উচিত?
বিনিয়োগ করার সময় বিজ্ঞতার সাথে বিনিয়োগ করা উচিত। আপনি যত  তাড়াতাড়ি বিনিয়োগ শুরু করেন তত তাড়াতাড়ি আপনার ভাল রিটার্ন থাকবে। আমরা সবসময় দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্যের জন্য বিনিয়োগ করে থাকি,একজন বিনিয়োগকারী কম মূল্যে কোনও জিনিস কিনে সেটি ভবিষ্যতে চড়া দামে বিক্রি করে দিয়ে সেখান থেকে পাওয়া বিনিয়োগের রিটার্ন-কে মূলধন লাভ বা ক্যাপিটাল গেন বলা হয়। অর্থ বিনিয়োগ করার একটি মাধ্যম হল মূলধন লাভ অর্জন করা। ক্রয় এবং বিক্রয়ের মধ্যে বিনিয়োগের মূল্য বাড়ানোর জন্য অ্যাপ্রিসিয়েশন শব্দটি ব্যবহৃত হয়। যখন আপনি স্টক, বন্ড, রিয়েল এস্টেট বা সোনার মতো বিভিন্ন সম্পদ শ্রেনীতে রেখে আপনার সঞ্চয় করা অর্থকে দিগুন করে, তখন আপনি বিনিয়োগের মাধ্যমে সম্পদ তৈরি করছেন। 
কীভাবে বিনিয়োগ কাজ করে?
বিনিয়োগের একটা সহজ সরল  সংজ্ঞা রয়েছে। দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা আপনাকে সফলভাবে সেই লক্ষ্যে পৌঁছাতে সাহায্য করতে পারে। বিনিয়োগ ক্ষেত্রে  সঠিক পছন্দটি আপনার বর্তমান আর্থিক অবস্থার উপর নির্ভর করে। নিজের ভবিষ্যতের আর্থিক লক্ষ্য পূরণ করতে এবং টাকা-পয়সার পরিমাণ বাড়াতে বিনিয়োগের পরিকল্পনা সবসময়ই করে রাখতে হয়।  ঋণ শোধ , অবসরের পরবর্তী জীবনের জন্য সঞ্চয় করা , সন্তানের উচ্চশিক্ষার জন্য সঞ্চয় ইত্যাদি বিনিয়োগকারীর আর্থিক লক্ষ্য হতে পারে। বিনিয়োগের মাধ্যমেও এমার্জেন্সি ফান্ড তৈরি করা যেতে পারে। অর্থাৎ ভবিষ্যতের জন্য এমন কোনও জিনিস কেনা হয়। যা মূল্য একটা নির্দিষ্ট সময়ের পর বৃদ্ধি পায়।  সহজ ভাষায় এটাকে  বিনিয়োগ বলা হয়। সাধারণত কোনও ব্যবসা অথবা  সম্পত্তিতে টাকা বিনিয়োগ করা হলে তা সুদ বা রিটার্ন দেয়।
বিনিয়োগ ক্ষেত্রে  সঠিক পছন্দ আপনার বর্তমান আর্থিক অবস্থার উপর নির্ভর করে 
কেন উচিত বিনিয়োগ করা?
ভবিষ্যতের আর্থিক লক্ষ্য বা সপ্ন পূরণের জন্য বিনিয়োগ খুব গুরুত্বপূর্ণ। নিজের ভবিষ্যৎ সুন্দর এবং সুরক্ষিত করার জন্য বিনিয়োগ করা আবশ্যই প্রয়োজন। বিনিয়োগের মাধ্যমে মূলধন তৈরি করার পাশাপাশি টাকা সঞ্চয়ের অভ্যেসও তৈরি করা হয়। তাতে বিনিয়োগকারীরা  আর্থিক শৃঙ্খলাও তৈরি করতে পারে। 
বিনিয়োগের মূল্য এবং মুদ্রাস্ফীতির প্রভাব :
মুদ্রাস্ফীতি, সহজ শর্তে, উপকরণ এবং পরিষেবার মূল্য বৃদ্ধি পায়।
সেই সঙ্গে বিনিয়োগরকারীর কেনার ক্ষমতা এবং টাকার মূল্যও নষ্ট হয়। এটি আপনার অর্থের মূল্য হ্রাস করে এবং আপনার ক্রয় ক্ষমতা হ্রাস করে। যখন মুদ্রাস্ফীতির হার বৃদ্ধি পায় তখন আপনি একই পরিমাণ অর্থ দিয়ে কম জিনিস কেনেন। যদি আপনি মুদ্রাস্ফীতি থেকে এগিয়ে থাকতে চান, তাহলে আপনার কাছে আজকের টাকা দিয়ে ভবিষ্যতে যে পরিমাণ পণ্য কেনার যে  ইচ্ছা আছে তা ক্রয় করার জন্য আপনার কাছে আরও বেশি অর্থ থাকতে হবে। তাই বিনিয়োগকারী যদি মুদ্রাস্ফীতির প্রভাব কাটাতে হলে আপনার হাতে পর্যাপ্ত টাকা থাকতে হবে। যদি আপনার টাকা থাকে, তাহলে তা আয়ও বাড়বে। রিটার্ন উপার্জন করতে, আপনাকে বিনিয়োগ করতে হবে। যাতে আপনি নিরাপদ ভবিষ্যতের জন্য ভিন্ন ধরনের জিনিস কিনে রাখতে পারেন।
 

ফ্যাক্ট ফাইল থেকে আরও খবর